বিপুল পরিমান ইয়াবাসহ ২’মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার, দেড় লাখ টাকা উদ্ধার

আইন-আদালত শিরোনাম

এন.এন.এস২৪, সিদ্ধিরগঞ্জ (২৩’ডিসেম্বর ২০১৯ইং সোমবার) ঃ সিদ্ধিরগঞ্জে র‌্যাব-১১’র অভিযানে ১’হাজার ৬’শ ৫০’পিছ ইয়াবা ট্যবলেটসহ ২’মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার, নগদ দেড় লাখ টাকা উদ্ধার। গত রোববার সকাল সাড়ে ৬’টায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানার চিটাগাংরোডসহ আটি হাউজিং এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গতকাল সোমবার র‌্যাব বাদী হয়ে মাদক মামলা দায়ের পূর্বক ধৃতদের সিদ্ধিরগঞ্জ থানার হস্তন্তর করা হয়।

র‌্যাব জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-১১’র একটি দল সিদ্ধিরগঞ্জ থানার চিটাগাংরোড ও আটি হাউজিং এলাকায় অভিযান চালায়। উক্ত অভিযানে চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তর থানাধীন নয়াকান্দি গ্রামের নাজমুল ও তার স্ত্রী নাদিয়া আক্তারকে গ্রেফতার করে। তারা মাদক ব্যবসার জন্য স্বামী-স্ত্রী উভয়ে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন আটি হাউজিং এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ বসবাস করে আসছে। পরবর্তীতে নাজমুল হক’কে হাসপাতালে নিয়ে তার পেটের ভিতর হতে ১’হাজার ৬’শ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে তার সিদ্ধিরগঞ্জের ভাড়াটিয়া বাসায় তল্লাশী করে আরো ৫০’পিস ইয়াবা ও মাদক বিক্রির নগদ ১’লাখ ৫২’হাজার টাকাসহ তার স্ত্রী নাদিয়া আক্তারকে গ্রেফতার করা হয়। তারা উভয়ে স্বামী-স্ত্রী চিহ্নিত মাদক পাচারকারী। মাদক ব্যবসা ছিল তাদের একমাত্র পেশা। তারা দীর্ঘদিন ধরে অভিনব কায়দায় পেটের ভিতর ইয়াবা ঢুকিয়ে কক্সবাজারের টেকনাফ থেকে বাসযোগে নারায়ণগঞ্জে এসে ঢাকা ও নারায়নগঞ্জের মাদক ব্যবসায়ীদের কাছে ইয়াবা পৌঁছে দিয়ে আসছে।

র‌্যাব আরো জানায়, চাঁদপুরের একজন ইয়াবা পাচারকারী দীর্ঘদিন ধরে নিয়মিতভাবে অভিনব কৌশলে বাসযোগে ইয়াবা পাচার করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় গত ২২’ডিসে¤¦র উক্ত ইয়াবা পাচারকারী একই কৌশলে কক্সবাজার হতে বাসযোগে ঢাকায় ইয়াবা নিয়ে আসছে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-১১ এর একটি আভিযানিক দল সকাল সাড়ে ৬’টায় ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কের চিটাগাং রোডে চেকপোষ্ট বসায়। চেকপোষ্টে গাড়ী থামিয়ে তল্লাশীকালে কক্সবাজার হতে ঢাকাগামী এস আলম পরিবহনের একটি চেয়ার কোচ থেকে নেমে দ্রুত গতিতে পালিয়ে যাওয়ার সময় সন্দিগ্ধ হিসেবে নাজমুল হক’কে আটক করা হয়। আটকের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে নাজমুল হক এর কথা ও আচরণে অসংলগ্নতা ও অস্বাভাবিকতা প্রকাশ পেলেও ইয়াবা পাচারের বিষয়ে সে অস্বীকার করে। অতঃপর গোপনসূত্রে প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী তার পেটের ভিতর ইয়াবা রয়েছে কিনা তা নিশ্চিত হওয়ার জন্য নারায়ণগঞ্জের সদর থানাধীন খানপুর ৩’শ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে নিয়ে এক্স-রে করে দেখা যায় তার পেটের ভিতর অসংখ্য ডিম্বাকৃতির বস্তু বিশেষ রয়েছে। পরবর্তীতে নিবিড়ভাবে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে গ্রেফতারকৃত নাজমুল হক স্বীকার করে যে তার পেটের ভিতর কালো টেপ দিয়ে মোড়ানো ছোট ছোট ৪০’টি ইয়াবার পোটলা রয়েছে যার প্রত্যেকটিতে ৪০’পিস করে মোট ১’হাজার ৬’শ পিস ইয়াবা রয়েছে।

সে আরও স্বীকার করে . কক্সবাজারে এই ইয়াবার পোটলাগুলো সে খাবারের সাথে গিলে খায় এবং পরবর্তীতে কলা এবং পাউরুটি খেয়ে সেই পোটলাগুলো পায়ু পথ দিয়ে বের করে। অতঃপর তাকে কলা এবং পাউরুটি খাওয়ানোর পর হাসপাতালের টয়লেটে গিয়ে তার পায়ু পথ দিয়ে কালো টেপ মোড়ানো ছোট ছোট ডিম্বাকৃতির ৪০’টি পোটলা বের করে দেয়।

উক্ত পোটলাগুলো হতে প্রত্যেকটিতে ৪০’পিস করে মোট ১’হাজার ৬’শ পিস ইয়াবা পাওয়া যায়। গ্রেফতারকৃত আসামী নাজমুল হক এর দেয়া তথ্য মতে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকায় পৃথক অভিযান পরিচালনা করে মাদক ব্যবসায়ী নাদিয়া আক্তার(৩১)’কে গ্রেফতার করা হয় ও তার বাসা থেকে ৫০’পিস ইয়াবা ও মাদক বিক্রির নগদ-১’লাখ ৫২’হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়। গ্রেফতারকৃত আসামীরা পরস্পর যোগসাজসে দীর্ঘদিন যাবৎ এভাবে অভিনব কৌশলে নারায়ণগঞ্জ, ঢাকা ও এর আশপাশের এলাকায় মাদকদ্রব্য ইয়াবা ক্রয়-বিক্রয় ও সরবরাহ করে আসছিল বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করে। তাদের নামে মাদক আইনে একাধিক মামলা রয়েছে

পোস্টটি শেয়ার করুন