টঙ্গীতে কুকুরের কামড়ের প্রতিবাদ করায় কুকুরের মালিকদের হামলায় আহত ২

শিরোনাম সারাদেশ

স্টাফ রিপোর্টার মোস্তাকিম খান : গাজীপুর সিটি ৪৩ নং ওয়ার্ড টঙ্গী মধ্যপাড়া দাদা গার্মেন্টস সংলগ্নে দেওয়ান মঞ্জিল বাড়ির পাশের ভাড়াটিয়া মোঃ সাইফুল ইসলাম( ৪১)পিতা মৃত ইদ্রিস আলী.সাং পাগার বাসা নং ৯৩.জৈমত থানা রোড. টঙ্গী পূর্ব থানা জিএমপি গাজীপুর এই মর্মে আমি অর্থ থানায় লিখিত ভাবে জানাইতেছি যে।

আসামি ১. লাখি (৩৩) ২. শিরিন (৩০)৩. রহিমা( ২৮)তাদের পিতা-মৃত আব্দুল মালেক।( ৪) তার স্ত্রী হাসিনা বেগম। (৫৫)উক্ত আসামি গন আমাদের প্রতিবেশী দীর্ঘদিন যাবৎ আমাদের সহিত শত্রুতা করিয়া আসিতেছে। ইং-১৩/০৬/২০২১- তারিখ রাত অনুমান ০৯.০০ ঘটিকার সময় আমার স্ত্রী আলিমা দেওয়ান দীপা( ৩০) আমার শাশুড়ি দেলোয়ারা বেগম (৫২) ও আমার মেয়ে তারিন (০২) সহ মার্কেট থেকে বাসায় আসার পথে উক্ত আসামি গন সহ আরো অজ্ঞাতনামা ২/৩ জন ছিলে। পূর্ব শত্রুতার জের ধরিয়া বাসার সামনে পথ রোধ করিয়া তাহাদের পালিত কুকুর কে বলে যে. কুকুরকে বলে আমার স্ত্রীকে কামড় মারার জন্য বলিলে পরবর্তীতে আসামিদের পালিত কুকুর আমার স্ত্রীর দিকে তেরে এসে ভয় দেখায়।

একপর্যায়ে আমার স্ত্রী উক্ত বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে গেলে। আসামীগণ আবারো ক্ষিপ্ত হয়ে যা তাহাদের পালিত কুকুর কে ইশারা ইঙ্গিতে বলে যে আমার স্ত্রীকে কামড় দেওয়ার জন্য বলিলে আমার স্ত্রীর বামপাশের কোমরের নিচে ও ডান পাশের কোমরের নিচে ৪ টি কামড় মারলে আমার স্ত্রী মাটিতে পড়ে যায়। তার পরে আসামীগণ আমার স্ত্রীর পরনের ওড়না ধরিয়া টেনে-হিঁচড়ে ৩ নং আসামী তাহাদের বাসার ভিতরে দিকে নিয়ে যায়।

আসামী হাতে থাকা লোহার রড দ্বারা হত্যার উদ্দেশ্যে এলোপাতাড়ি মারপিট কোরিয়া। আমার স্ত্রীর মাথার গুরুতর কাটাও রক্তাক্ত জখম করে। আমার শাশুড়ি আগাইয়া গেলে তাকেও মারধোর এলোপাথাড়ি তাহার শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম করে। আমার শিশু বাচ্চাকে মারধর করে ভয়-ভীতি প্রদর্শন করেন।

আমার স্ত্রী ও শাশুড়ি ডাক শুনিয়া আমি এগিয়ে গেলে তাহারা আমাকেও এলোপাতাড়ি মারধর করে। ২ নং আসামীর সাথে দা দ্বরা আমার মাথার উপর কাটে ও রক্তাক্ত জখম করে। আমাদের ডাক শুনিয়া এলাকাবাসী এগিয়ে আসে। আমাদেরকে টঙ্গী শহীদ আহসান উল্লাহ মাষ্টার জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। আমি ও আর স্ত্রী চিক্যিসা করিয়া। টঙ্গী পূর্ব থানায় অভিযোগ দায়েরে করি।

পোস্টটি শেয়ার করুন