র‌্যাব-১১’র অভিযান, ২৪’জন প্রতারক গ্রেফতার: ১’শ ১’জন ভিকটিম উদ্ধার

রাজধানী শিরোনাম

সিদ্ধিরগঞ্জের আদমজী নগরে অবস্থিত র‌্যাব-১১’র অভিযান, ২৪’জন প্রতারক গ্রেফতার। ১’শ ১’জন ভিকটিমসহ বিভিন্ন মালামাল উদ্ধার। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গত রোববার রাতে ঢাকার উত্তরা এলাকা থেকে ‘লাইফওয়ে বাংলাদেশ প্রাইভেট লিমিটেড’ নামক ভূয়া এমএলএম কোম্পানীতে অভিযান চালিয়ে সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্রের ২৪’জনকে গ্রেফতারসহ ১’শ ১’জন প্রতারিত ভিকটিমকে উদ্ধার করে। অভিযানের সময় টাকাসহ প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত বিপুল পরিমান নথিপত্র জব্দ করা হয়।

র‌্যাব জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গত রোববার রাতে ঢাকার উত্তরা এলাকা থেকে ‘লাইফওয়ে বাংলাদেশ প্রাইভেট লিমিটেড’ নামক ভূয়া এমএলএম কোম্পানীতে অভিযান চালানো হয়। গত রোববার রাতে ঢাকার উত্তরা এলাকায় অবস্থিত ‘লাইফওয়ে বাংলাদেশ প্রাইভেট লিমিটেড’ নামক ভূয়া এমএলএম কোম্পানীতে চালানো উক্ত অভিযানে সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্রের ২৪’জনকে গ্রেফতারসহ ১’শ ১’জন প্রতারিত ভিকটিমকে উদ্ধার করে।

ধৃতরা প্রতারকরা হলো, মোঃ নজরুল ইসলাম(২৮), মোঃ গোলাম কিবরিয়া(৩৮), মোঃ সিদ্দিকুর রহমান(৩৭), বিপুল চৌধুরী(২৮), সালমান ফারসি(২০), মোঃ সেলিম রেজা(২৭), মোঃ খায়রুজ্জামান টিটু(২৫), মোঃ আলী আকবর(২২), সুজন মিয়া(২৫), মোঃ কামরুল আহসান(৪৯), মোঃ রুহুল আমিন(২১), মোঃ সুমন মুন্সী(৩১), মোঃ ইসমাইল হোসেন(২৩), মোঃ রেজাউল করিম(২৫), মোঃ ইসমাইল হোসেন(২২), মোঃ আরিফুল ইসলাম যাদু(২৬), মোঃ আল আমিন(২১), মোঃ মোবারক হোসেন(২০), মোঃ মাহাবুর রহমান(২৬), মোঃ মেহেদী হাসান(২২), মোঃ মাইদুল ইসলাম(২৬), মোঃ সোহাগ(২৯), রাকিব শেখ(২৪), ও মোঃ সাদ্দাম হোসেন(২৫)।

গ্রেফতারকৃতদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ও জব্দকৃত নথিপত্র পর্যালোচনা করে জানা যায় যে, উক্ত “লাইফওয়ে বাংলাদেশ প্রাইভেট লিমিটেড” নামক ভুয়া এমএলএম কোম্পানী মাসিক ১৬ হাজার ও তদুর্ধ টাকা বেতনের প্রতিশ্রুতিসহ লোভনীয় অফার দিয়ে পত্রিকায় বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে চাকুরী প্রত্যাশী বেকার যুবক-যুবতীদের ফাঁদে ফেলে। ভর্তির শুরুতে কোম্পানীর আর্থিক লাভ ও পণ্য বিক্রির কমিশনের আশ¡াসে বাধ্যতামূলক জামানত হিসাবে জন-প্রতি ৫৫’হাজার বা তার চেয়ে বেশি টাকা নেওয়া হয়। পরবর্তীতে প্রশিক্ষনের নামে সপ্তাহ খানেক কালক্ষেপন করে প্রত্যেককে নতুন ২’জন সদস্য সংগ্রহের শর্ত প্রদান করে। নতুন সদস্য সংগ্রহ করে দিলে সংগৃহীত টাকার সামান্য কমিশন প্রদান করে। নতুন সদস্য দিতে না পারলে কুট-কৌশলের আশ্রয় নিয়ে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে খালি ষ্ট্যাম্প ও আপোষনামায় জোরপূর্বক স্বাক্ষর নিয়ে তাড়িয়ে দেয়। প্রতিবাদ করলে ভাড়াটিয়া লোকজন দ্বারা আটকে রেখে শারীরিক নির্যাতনও করে থাকে। অভিযানকালে ভূয়া এমএলএম কোম্পানীর প্রশিক্ষণের নামে সেমিনার কক্ষ হতে প্রতারণার শিকার ১”শ ১’জন ভূক্তভোগীকে উদ্ধার করা হয়। এছাড়াও উক্ত কোম্পানীর অফিস থেকে প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত ৮’টি মনিটর, বিপুল সংখ্যক নথিপত্র ও নগদ ৩১’হাজার ২”শ টাকা উদ্ধার করা হয়। ধৃত প্রতারদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় মামলা দায়ের করা হয়।

পোস্টটি শেয়ার করুন